Online Apply Infoচাকরির খবরটিউটোরিয়াল

অনলাইনে সহজে সরকারি চাকরির আবেদন ফরম পূরণের নিয়মাবলী | How to Apply Govt job in BD

অনলাইনে সহজে সরকারি চাকরির আবেদন ফরম পূরণ করার টিপস

বর্তমানে বাংলাদেশের বেশীর ভা্গ সরকারি চাকরির আবেদন অনলাইনে গ্রহন করা হয়ে থাকে। এবং এর মধ্যে ৯০ থেকে ৯৫% সরকারি চাকরির আবেদনের পোর্টাল (ওয়েবসাইট) একই রকম হয়ে থাকে। আবেদনের নিয়ম কানুন ও একই রকম থাকে। teletalk.com.bd এই পোর্টালের মাধ্যমে যত আবেদন গ্রহন করা হয় তার সবগুলার নিয়ম কানুন একই রকম। আপনি যদি এই পোর্টালের মাধ্যমে একটি আবেদন করতে পারেন তাহলে বাকি সবগুলাও করতে পারবেন। আজকে আপনাদের জন্য আমরা নিয়ে আসছি খুবই সহজ একটি পদ্ধতি (ভিডিও সহকারে) যার মাধ্যমে আপনারা নিজে নিজে অনলাইনে যে কোন সরকারি চাকরির আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের পূর্ব প্রস্তুতি :-

০১। আপনার একাডেমিক যে কোন একটি সার্টিফিকেটের কপি হাতে রাখুন।

০২। আবেদনের জন্য আপনার পাসপোর্ট সাইজের ছবিটিকে স্ক্যান করে (৩০০*৩০০) পিক্সেলে  সাইজ করে নিবেন।

০৩। আবেদনের জন্য আপনার স্বাক্ষরটিকে স্ক্যান করে (৩০০*৮০) পিক্সেলে  সাইজ করে নিবেন।

আবেদন ফরম পূরণের নিয়মাবলী :-

০১। আবেদনের ওয়েব এড্রেসটি যে কোন একটি ব্রাউজারে লিখে ইন্টার করুন।

০২। Application From – এ ক্লিক করুন।

০৩। পদের নাম সিলেক্ট করে Next বাটনে ক্লিক করবেন।

০৪।Application Name এর জায়গাই আপনার নিজের নাম লিখবেন (অবশ্যই সার্টিফিকেটে যেভাবে আছে)

০৫। Fathers Name এর জায়গাই আপনার বাবার নাম লিখবেন

০৬। Mothers Name এর জায়গাই আপনার মায়ের নাম লিখবেন

০৭। Date Of Birth এর জায়গাই আপনার জন্ম তারিখটি লিখবেন

০৮। Gender এর জায়গাই আপনার লিঙ্গ সিলেক্ট করবেন

০৯। Nationality এর জায়গাই আপনার জাতীয়তা সিলেক্ট করবেন

১০। Religion এর জায়গাই আপনার ধর্মের নামটি সিলেক্ট করবেন

১১। National ID/Passport ID/Birth Registration এই তিনটি থেকে যে কোন একটির YES বাটনে ক্লিক করে পরিচিতি নাম্বারের তথ্য দিন।

১২। Marital Status এর জায়গাই আপনার বৈবাহিক অবস্থা সিলেক্ট করবেন।

১৩। Quota এর জায়গাই আপনার যদি কোন স্বীকৃত কোটা থাকলে তা সিলেক্ট করুন।

১৪। Present Address এর জায়গাই আপনার বর্তমান ঠিকানার তথ্য দিবেন

১৫। Permanent Address এর জায়গাই আপনার স্থায়ী ঠিকানার তথ্য দিবেন (বর্তমান ঠিকানা ও স্থায়ী ঠিকানা যদি একই হয়ে থাকে তাহলে Permanent Address এর ঘরে উপরে টিক মার্কে ক্লিক করলেই হবে)

১৬। Mobile Number এর জায়গাই আপনার মোবাইল নাম্বারটি দিবেন (অবশ্যই বায়োমেট্টিক পদ্ধতিতে রেজিস্ট্রেশন করা এবং সচল থাকতে হবে)

১৭। Confirm Mobile এর জায়গাই আপনার মোবাইল নাম্বারটি পুনরায় লিখতে হবে

১৮। Email এর জায়গাই আপনার আপনার যদি কোন ইমেইল আইডি থাকে তা দিবেন

১৯। SSC or Equivalent Level অপশনে আপনার SSC পাশের তথ্যগুলা দিবেন

২০। HSC or Equivalent Level অপশনে আপনার HSC পাশের তথ্যগুলা দিবেন

২১। Graduation/Equivalent Level অপশনে আপনার স্নাতক বা সমমান পাশের তথ্যগুলা দিবেন

২২। Masters/Equivalent Level অপশনে আপনার Masters বা সমমান পাশের তথ্যগুলা দিবেন

২৩। Experience Information অপশনে আপনার অভিজ্ঞতার প্রমাণস্বরুপ YES বাটনে ক্লিক করুন (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)

২৪। Departmental Candidate Status অপশনে আপনি যদি কোন সরকারি/আধা-সরকারি বা  স্বীকৃত কোন চাকরি করে থাকেন তার তথ্য দিবেন।

২৫। Validation Code অপশনে কতগুলি নাম্বার ও ইংরেজি বর্ণ থাকবে তা দেখে দেখে লিখে দিতে হবে।

২৬। ১ম পেইজের সর্বশেষে একটি টিক মার্ক থাকবে এটিতে টিক দিবেন।

২৭। NEXT বাটনে ক্লিক করবেন।

পরবর্তী পেইজে আপনার ছবি ও স্বাক্ষর আপলোড করবেন। এবং আবেদনটি সাবমিট করার পূর্বে ভালোমত চেক করে নিবেন। সব ঠিক থাকলে Submit The Application বাটনে ক্লিক করুন।

আপনার আবেদন সাবমিট হয়ে গেলে তারা আপনাকে একটা PDF ফাইল দিবে যেটাতে আপনার টাকা পরিশোধের সকল নিয়ম দেওয়া থাকবে। যে কোন টেলিটক নাম্বার থেকে টাকা জমা দিতে হবে।

এডমিট কার্ড প্রাপ্তি:-

পরীক্ষার সময় হলে কর্তৃপক্ষ আপনাকে একটি ম্যাসেজের মাধ্যমে জানিয়ে দিবে এডমিট ডাউনলোড করার জন্য। আপনার ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড ব্যাবহার করে পরবর্তীতে আপনার এডমিট ডাউনলোড করতে পারবেন।

পুরো প্রক্রিয়াটি না বোঝে থাকলে নিচের ভিডিওটি দেখে নিন

Tags

Related Articles

Leave a Reply ( আপনার মতামত প্রকাশ করুন )

Back to top button
error: Content is protected !!
Close